স্বামীর সহযোগিতায় পিএইচডি করলেন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী সুরাইয়া


ওহাইও সংবাদ প্রকাশের সময় : জানুয়ারি ১১, ২০২৩, ১০:১৬ অপরাহ্ণ /
স্বামীর সহযোগিতায় পিএইচডি করলেন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী সুরাইয়া

ওহাইও সংবাদ : দৃষ্টিপ্রতিবন্ধি হয়েও অসাধ্য সাধন করলেন বাংলাদেশের মেয়ে সুরাইয়া আক্তার। তবে তার এ যাত্রায় ভালোবাসা আর সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন স্বামী মিজানুর রহমান। দৃষ্টিপ্রতিবন্ধি হয়েও তিনি যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব ইলিনয় থেকে সম্প্রতি পিএইচডি শেষ করেছেন। তার স্বামীও যুক্তরাষ্ট্রের একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রতিবন্ধিতা বিষয়ে পিএইচডি শেষ করেছেন।

বর্তমানে এই দম্পতি যুক্তরাষ্ট্রে আছেন। তারা জানান, বিশ্ববিদ্যালয়টিতে আমিই প্রথম আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থী হিসেবে পিএইচডি শেষ করলাম। আমি প্রথম কি না জানি না, তবে বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতার মধ্যে আমি পিএইচডি শেষ করতে পেরেছি, সেটাই বড় কথা। তিনি জানান, পিএইচডি শেষ করার পর যুক্তরাষ্ট্রের ইন্ডিয়ানায় একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে তার স্বামীর চাকরি হয়েছে। একই বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাকেও একটি চাকরির প্রস্তাব দিয়েছে। তবে আপাতত ছয় মাস তিনি তার দুই ছেলেকে সময় দেবেন।

২০১৭ সালে তারা একসঙ্গে শিকাগোর ইউনিভার্সিটি অব ইলিনয়ে পিএইচডি প্রোগ্রামের জন্য নির্বাচিত হলেও তিনি সে বছর ভর্তি না হয়ে পরের বছর ভর্তি হন। স্ত্রী সুরাইয়া আক্তারের পিএইচডি শেষ করার পর স্বীকৃতি প্রদান অনুষ্ঠানের ছবি পোস্ট করে মিজানুর রহমান ফেসবুকে লিখেছেন, বিয়ের প্রথম দিনই স্ত্রীর কাছে স্ত্রীর স্বপ্নের কথা জানতে চেয়েছিলেন। তিনি জানিয়েছিলেন, তার বাবা খুব খুশি হবেন যদি তিনি বিশ্বের নামকরা কোনো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি শেষ করতে পারেন। মিজানুর লিখেছেন, সেই দিনই তিনি তার স্ত্রীর এই স্বপ্ন পূরণে পাশে থাকবেন বলে অঙ্গীকার করেছিলেন। এখন স্ত্রীর সেই স্বপ্ন বাস্তব হয়েছে।

সুরাইয়া-মিজানুর দম্পতির পরিচয় হয় প্রতিবন্ধিতা সূত্রেই। প্রতিবন্ধীবান্ধব সমাজ গড়ার স্বপ্ন দেখেন তার স্বামী মিজানুর রহমান। ২০০৮ সালে বাংলাদেশে গড়ে তোলেন ফিজিক্যালি–চ্যালেঞ্জড ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন (পিডিএফ) নামের একটি সংগঠন। এ সংগঠনে কাজের মাধ্যমেই সুরাইয়া আক্তারের সঙ্গে পরিচয় হয়েছিল মিজানুর রহমানের। মিজানুরও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ইতিহাস বিভাগে পড়াশোনা করেছেন। নানা প্রতিবন্ধকতা পেছনে ফেলে ২০১২ সালে তিনি সুরাইয়াকে বিয়ে করেন। স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষ শেষ করে বিয়ে, তৃতীয় বর্ষে পড়ার সময় প্রথম সন্তানের জন্ম। তারপর পিএইচডি করতে গিয়ে ছোট ছেলের জন্ম।

২০১৮ সালের ২৭ জুলাই এই পরিবার বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশে রওনা হয়েছিল। আপাতত যুক্তরাষ্ট্রের ইন্ডিয়ানায় সংসার সাজানোর কাজে ব্যস্ত এ দম্পতি। নীলফামারীর মেয়ে সুরাইয়া। মেয়ে ও জামাতার এমন অভানীয় সাফল্যে খুশি হয়েছে সুরাইয়ার বাবা মকবুল হোসেন ও মা রাশেদা বেগম।