বাংলাদেশ ট্যাক্সি সোসাইটি অফ ফিলাডেলফিয়ার মানবিকতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্হাপন


ওহাইও সংবাদ প্রকাশের সময় : ফেব্রুয়ারি ৫, ২০২৪, ৯:৫৮ অপরাহ্ণ /
বাংলাদেশ ট্যাক্সি সোসাইটি অফ ফিলাডেলফিয়ার মানবিকতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্হাপন

মোঃ আশরাফুল ইসলাম (আরিফ), ওহাইও সংবাদ : যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভেনিয়ার ফিলাডেলফিয়া শহরে সব থেকে বড় সংগঠন বাংলাদেশ ট্যাক্সি সোসাইটি অফ ফিলাডেলফিয়া। সংগঠনটির যাত্রা শুরু হয় ২০০৭ সালে। হাঁটি হাঁটি পা পা করে সংগঠনটি বর্তমানে আমেরিকায় একটি শক্তিশালী সংগঠন হিসাবে প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। বর্তমানে এই সংগঠনটির সদস্য সংখ্যা পাঁচশত (৫০০) এর অধিক এবং সংগঠনটির সম্পদ হিসাবে একটি বাড়ি এবং প্রতি সদস্যের মাসিক ১০ ডলার করে চাঁদা।সদস্যদের মাসিক চাঁদায় ব্যাংকে বর্তমানে সংরক্ষিত ২ লক্ষ ৩০ হাজার ডলারের কাছাকাছি আছে।

বিটিএসপির সদস্য এবং আমাদের অত্যন্ত প্রিয়ভাজন ফয়সল আহমেদ সোহেল যিনি গত বছর বাংলাদেশে বেড়াতে গিয়ে মৃত্যুবরন করেন। মৃত্যুকালীন টাকা(২টি অংশের একটি অংশ) তার মেয়ে সোমাইয়া এফ বেগম এবং ছেলে আদনান ইউ আহমেদকে গত ২৮ শে জানুয়ারি, ২০২৪ ইং তারিখে প্রদান করা হয় এবং বাকী অংশ খুব দ্রুত বাংলাদেশে উনার পরিবারের কাছে পৌঁছানো হবে।

আপনারা জানেন যে, বাংলাদেশ ট্যাক্সি সোসাইটি অফ ফিলাডেলফিয়ার সংবিধান অনুযায়ী ( অনুচ্ছেদ – ৪ ধারা ৩ এবং ৯) কোন সদস্যের মৃত্যু হলে সাথে সাথেই সংগঠনের তহবিল থেকে তিন হাজার ডলার এবং প্রত্যেকটি সক্রিয় সদস্যকে একশত ডলার করে মৃত ব্যক্তির পরিবারকে দিতে হবে, অন্যথায় সদস্য পদ হারাবেন।


বর্তমানে আমাদের সংগঠনের ৪৩৩ জন সক্রিয় সদস্য। এই ৪৩৩ জন সদস্যের প্রত্যেকেই একশত ডলার ($১০০) করে পরিশোধ করেছেন।যার প্ররিপ্রেক্ষিতে সর্বমোট ( সদস্য ৪৩,৩০০ ডলার বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ৫১ লক্ষ ৯৬ হাজার টাকা সংগ্রহ করে প্রয়াত ফয়সল আহমেদ সোহেলের পরিবারের নিকট যথাসময়ে হস্তান্তর করেছেন সংগঠনের কর্মকর্তাবৃন্দ।
এ ধরনের পরিস্থিতিতে বিটিএসপির প্রত্যেকটি সদস্যের মধ্যে টাকা দেওয়ার ব্যাপারে যে দায়িত্ব এবং আগ্রহ দেখেছি তা সত্যিই প্রসংশনীয়।
প্রয়াত ফয়সল আহমেদ সোহেলের দেশের বাড়ি বাংলাদেশের বরিশালে। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, এক মেয়ে, এক ছেলে, অনেক বন্ধু ও আত্নীয় স্বজন রেখে গেছেন।
আসুন আমরা আল্লাহর কাছে দোয়া করি আল্লাহ যেন মরহুমকে জান্নাতুল ফেরদৌস দান এবং উনার পরিবারকে শোক কাটিয়ে উঠার তৌফিক দান করেন।
আমিন।

বিঃদ্রঃ গত তিন/চার বছরে প্রয়াত ফয়সল আহমেদ সোহেল সহ সর্বমোট ৭ জন বিটিএসপির সদস্য ইন্তেকাল করেছেন। এর পূর্বেও প্রয়াত মোহাম্মদ নাসিরুদ্দিন (চট্রগ্রাম), প্রয়াত জামাজ্জল হোসেন(রংপুর), প্রয়াত তোজাম্মেল হক(দিনাজপুর), প্রয়াত ডাঃ মো এ এইচ তালুকদারের (ঢাকা) প্রত্যেকের পরিবারকেও মৃত্যুকালীন (৪২-৪৩ হাজার ডলার) প্রদান করা হয়েছিল।এছাড়া ও বর্তমানে আরো দুইজন মরহুম মোঃ ওয়াসিম শাহরিয়র পল্লব (ভেড়ামারা) যিনি বাংলাদেশ বেড়াতে গিয়ে মৃত্যুবরণ করেন এবং মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান (নড়াইল) যিনি দুর্বৃত্তের গুলিতে আপারডার্বী মদিনা মসজিদের পার্কিং লটে নিহত হন তাদের টাকাও সদস্যদের কাছ থেকে সংগ্রহ করা হচ্ছে মৃতদের পরিবারের জন্য যা আমেরিকায় বাংলাদেশিদের কোন সামাজিক সংগঠনের জন্য মাইলফলক অর্জন হিসেবে থাকবে। সেই সাথে ধন্যবাদ এবং কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি বিটিএসপির সদস্যদের যারা প্রত্যেকে এই করোনাকালীন মহামারির সময়ে এবং পরবর্তিতে অনুদানের অর্থ সহয়তা করে প্রয়াত সম্মানিত সদস্য ফয়সাল আহমেদ সোহেল, ডাঃ মোঃ এ এইচ তালুকদার, তোজাম্মেল হক, জামাজ্জল হোসেন এবং মোহাম্মদ নাসিরুদ্দিনের পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছেন এবং বাকী দুইজন সদস্যের অনুদানের অর্থ দ্রুত প্রদান করার মাধ্যমে মৃতের পরিবারের সহযোগিতায় এগিয়ে আসবেন।