অযোধ্যায় মসজিদ নির্মাণের কাজ কবে শুরু হবে?


ওহাইও সংবাদ প্রকাশের সময় : জানুয়ারি ২৩, ২০২৪, ১২:১০ পূর্বাহ্ণ /
অযোধ্যায় মসজিদ নির্মাণের কাজ কবে শুরু হবে?

ওহাইও সংবাদ : অযোধ্যায় আজ রাম মন্দিরের উদ্বোধন হচ্ছে। এরই মধ্যে প্রশ্ন উঠেছে সেখানে তাহলে মসজিদ নির্মাণের কাজ কবে শুরু হবে? এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছে ইন্দো-ইসলামিক কালচারাল ফাউন্ডেশন। সংগঠনের এক প্রবীণ সদস্য বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছেন, মে মাস থেকে শুরু হবে মসজিদ তৈরির কাজ।

মসজিদ নির্মাণে অনুদান সংগ্রহ করার বিষয়টিও জানিয়েছেন তিনি। নির্মাণ কাজ শেষ হতে তিন থেকে চার বছর সময় লাগবে। এই মসজিদের প্রকল্প তত্ত্বাবধানে দায়িত্ব রয়েছে ইন্দো-ইসলামিক কালচারাল ফাউন্ডেশনের ওপর (আইআইসিএফ)।

সংগঠনের প্রধান হাজি আরাফাত শেখ মসজিদ নির্মাণের বিষয়ে বিভিন্ন তথ্য দিয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন, মসজিদ নির্মাণের অনুদান সংগ্রহের জন্য শিগগিরই একটি ‘ক্রাউড ফান্ডিং’ ওয়েবসাইট চালু করা হবে। মহানবি হযরত মুহাম্মদের (সা.) নাম অনুসারে এই মসজিদের নাম হবে ‘মসজিদ মুহাম্মদ বিন আবদুল্লাহ’।

তিনি বলেন, ‘মানুষের মধ্যে বৈরিতা, ঘৃণাকে ভালবাসায় পরিণত করাই আমাদের প্রচেষ্টা। সেক্ষেত্রে আপনি সুপ্রিম কোর্টের রায় মানুন বা না মানুন। এইসব লড়াই থেমে যাবে যদি আমরা আমাদের সন্তানদের সুশিক্ষা দেই।

২০১৯ সালে সুপ্রিম কোর্টের এক রায়ে বলা হয়েছিল, অযোধ্যায় বাবরি মসজিদের জমিতে মন্দির হবে। তবে নতুন করে মসজিদ নির্মাণের জন্য পৃথক জমি দিতে হবে। সেই নির্দেশ অনুযায়ী অযোধ্যার উপকণ্ঠে ধন্যিপুরে নতুন মসজিদ নির্মাণের কথা রয়েছে।

আইআইসিএফের প্রেসিডেন্ট জুফর আহমেদ ফারুকি জানিয়েছেন, অনুদানের জন্য সংগঠনটি কারও কাছে যায়নি। সংগঠনের সম্পাদক আথার হুসেন জানিয়েছেন, মসজিদ নির্মাণে দেরি হচ্ছে কারণ নকশায় আরও কিছু সাবেকি রীতির ছোঁয়া আনতে চাইছেন তারা। মসজিদ চত্বরে ৫০০ শয্যার একটি হাসাপাতালও তৈরি হবে বলে জানানো হয়েছে।

এদিকে সোমবার (২২ জানুয়ারি) রাম মন্দিরের উদ্বোধন উপলক্ষে অযোধ্যায় আজ ‘মহোৎসব’ শুরু হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী রাম মন্দিরের উদ্বোধন করবেন। তার হাত দিয়ে রামলালার বিগ্রহে ‘প্রাণপ্রতিষ্ঠা’ হবে। রাম মন্দিরের উদ্বোধন উপলক্ষে কড়া নিরাপত্তায় মুড়েছে পুরো নগরী।

বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত পুলিশ এবং কমান্ডো বাহিনীর সদস্যদের দিয়ে সয়লাব পুরো অযোধ্যা। প্রতিটি উঁচু বাড়ির মাথায় বিশেষ রাইফেল নিয়ে পাহারায় রয়েছে স্নাইপার। আকাশে নিরন্তর উড়ছে অত্যাধুনিক নজরদারি ড্রোন। নিরাপত্তার চাদরে মুড়ে ফেলা হয়েছে রামের জন্মভূমিকে।