নিপাহ ভাইরাস প্রতিরোধে যা করবেন


ওহাইও সংবাদ প্রকাশের সময় : জানুয়ারি ১৯, ২০২৪, ৭:২১ অপরাহ্ণ /
নিপাহ ভাইরাস প্রতিরোধে যা করবেন

ওহাইও সংবাদ : নিপাহ ভাইরাস হচ্ছে বাদুড়ের মাধ্যমে সংক্রমিত একটি ভাইরাস। এর সংক্রমণের ফলে মৃত্যুহার ৪০-৭০ শতাংশ হয়ে থাকে। এটি হেনিপা ভাইরাসের অন্তর্গত একটি আরএনএ ভাইরাস। সংক্রমিত বাদুড়ের লালা ও মূত্রে ভাইরাসটি পাওয়া যায়। মানবদেহ ও শূকরের দেহে ভাইরাসটির সংক্রমণের প্রমাণ পাওয়া গেছে।

বাংলাদেশে খেজুরের রস খাওয়ার মাধ্যমে নিপাহ ভাইরাস ছড়ানোর আতঙ্ক সবার মনেই আছে। বিগত এক দশকেরও বেশি সময় ধরে খেজুরের রস খাওয়ার ক্ষেত্রে নিপাহ ভাইরাস আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। তাই জেনে নেওয়া উচিত, কীভাবে প্রতিরোধ করা যায় এই ভাইরাস।

কীভাবে ছড়ায়

নিপাহ ভাইরাস বাদুড় আর শূকরের দেহ থেকে মানবদেহে ছড়ায়। এছাড়া অসুস্থ ব্যক্তির শরীর থেকে সুস্থ ব্যক্তির শরীরে রক্ত, প্রস্রাব আর সর্দির মাধ্যমে ছড়াতে পারে। তবে ৪-১৪ দিন বা সর্বোচ্চ ৪৫ দিন পর্যন্ত সুপ্ত অবস্থায় থাকতে পারে।

রোগের লক্ষণ

এই রোগের কারণে শরীরে জ্বর, মাথাব্যথা, কাশি, গলাব্যথা, শ্বাসকষ্ট, গায়ে ব্যথা, বমি, আচ্ছন্নতা, ঝিমুনি ভাব, সংজ্ঞাহীনতা, নিউমোনিয়া, মস্তিষ্কের প্রদাহ এবং কোমা দেখা দিতে পারে।

নির্ণয়ের উপায়

এই রোগের লক্ষণ দেখা দিলে গলার সোয়াব, রক্ত, সিএসএফ ও প্রস্রাবের আরটি-পিসিআর পরীক্ষার মাধ্যমে ভাইরাস শনাক্ত করতে হবে। এছাড়া রক্তের ওমে আর আইজিএম পরীক্ষা এবং মৃত ব্যক্তির নির্দিষ্ট টিস্যুর অটোপ্সির মাধ্যমে Immunohistochemistry পরীক্ষা করা যেতে পারে।

প্রতিরোধে করণীয়

১. স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে।

২. আক্রান্ত মানুষ, বাদুড় ও শূকরের সংস্পর্শ এড়িয়ে চলতে হবে।

৩. শীতকাল বা অন্য যে কোনো সময়ে কাঁচা খেজুরের রস পান করা থেকে বিরত থাকা।

৪. হিমায়িত খেজুরের রস পান করা থেকে বিরত থাকা।

৫. বাদুড়ের আংশিক খাওয়া বা কামড়ানো ফল খাওয়া যাবে না।

৬. বাদুড় বসবাস করা কূপের পানি ব্যবহার করা যাবে না।

ঝুঁকিপূর্ণ ব্যক্তি

এই ক্ষেত্রে হাসপাতালের স্বাস্থ্যকর্মী, আক্রান্ত শূকরের খামারি, সংক্রমিত ব্যক্তির সংস্পর্শে আসা সুস্থ ব্যক্তি থেকে দূরে থাকতে হবে। এমনকি যারা শীতকালে কাঁচা খেজুরের রস পান করেন, বাদুড়ের আংশিক খাওয়া ফল খান, যাতে বাদুড়ের লালা লেগে থাকে কিংবা যারা বাদুড়ের বাস করা কূপের পানি পান বা ব্যবহার করেন।

চিকিৎসা ও জটিলতা

নিপাহ ভাইরাস প্রতিরোধে সুনির্দিষ্ট ও কার্যকরী কোনো ওষুধ বা টিকা এখনো আবিষ্কৃত হয়নি। তাই প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থাই উত্তম। তবে সুস্থ হওয়ার পরও বিভিন্ন জটিলতা দেখা দিতে পারে। এ ব্যাপারে ব্যাপক জনসচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। মৃত্যুঝুঁকি রোধে সঠিক পদক্ষেপ নিতে হবে।