আজও রহস্য বেনজির হত্যাকাণ্ড


ওহাইও সংবাদ প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ২৭, ২০২৩, ১১:০২ অপরাহ্ণ /
আজও রহস্য বেনজির হত্যাকাণ্ড

ওহাইও সংবাদ: ঘটনা ১৬ বছর আগের। ২০০৭ সালের ২৭ ডিসেম্বর। রাওয়ালপিন্ডির লিয়াকত বাগের নির্বাচনি সভা শেষে নিজের গাড়ির দিকে যাচ্ছিলেন বেনজির ভুট্টো। চারপাশে অসংখ্য জনতার ভিড়। হঠাৎই মিছিল থেকে উঠে আসে এক ১৫ বছরের বালক। বিলাল নামের সেই ছেলে এক সেকেন্ডেরও কম সময়ে তিনটি গুলি ছোড়ে সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেনজিরের দিকে। সঙ্গে সঙ্গেই আত্মঘাতী বোমায় উড়িয়ে দেয় নিজেকে। রাওয়ালপিন্ডি জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হলে মৃত ঘোষণা করা হয় বেনজির ভুট্টোকে। পাকিস্তানসহ সারা বিশ্বের আলোচিত এ হত্যাকাণ্ড আজও রহস্য! হত্যাকাণ্ডের মূল হোতারা এখনো ধরাছোঁয়ার বাইরে। বৃহস্পতিবার ছিল তার ১৬তম মৃত্যুবার্ষিকী। পাকিস্তান ও মুসলিম বিশ্বের প্রথম এ নারী প্রধানমন্ত্রীর মৃত্যুবার্ষিকী এদিন দেশজুড়ে পালন করে তার দল পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি)।  এএফপি, আলজাজিরা।

কিন্তু সেনাবাহিনী তাকে স্বস্তিতে থাকতে দেয়নি। বেনজির ভুট্টোকে ক্ষমতা থেকে সরানোর জন্য তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ আনা হয়েছিল। এরপর হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় এফআইএ এই মামলায় সাবেক প্রেসিডেন্ট জেনারেল পারভেজ মোশাররফ, সাবেক সিটি পুলিশ অফিসার সৌদ আজিজ ও পুলিশ সুপার রাওয়াল খুররম শেহজাদকে আসামি হিসাবে গ্রেফতার করা হয়। যদিও পরে তারা হাইকোর্ট থেকে জামিন পেয়ে যান। ২০১৭ সালের ৩১ আগস্ট বিশেষ সন্ত্রাসবিরোধী আদালতের (এটিসি) বিচারক মুহাম্মদ আসগর খান রাওয়ালপিন্ডির আদিয়ালা কারাগারে এ মামলার রায় ঘোষণা করেন। রায়ে পাঁচ আসামিকে খালাস দেন বিচারক। পারভেজ মোশাররফকে পলাতক ঘোষণা করা হয়। তার বিরুদ্ধে স্থায়ী গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়। তার স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি জব্দ করা হয়। প্রমাণ ধ্বংস ও নিরাপত্তা ভঙ্গের দায়ে পুলিশ কর্মকর্তা সৌদ আজিজ ও খুররম শেহজাদকে ১৭ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এ ছাড়া তাদের প্রত্যেককে ১০ লাখ রুপি করে জরিমানা করা হয়। তবে ৩ মাস পর হাইকোর্ট এ সাজা স্থগিত করে দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে কারাগার থেকে মুক্তি দেন।